শরীফারা চার ভাই-বোন। তাঁর এবং বড় বোনের বিয়ে হয়েছে। গত মাসে শরীফার বাবা মারা গেছেন। তাঁর মা বেঁচে আছেন। এখন শরীফার দুই ভাই মিলে বাবার সম্পত্তি নিজেদের নামে ভাগ-বাঁটোয়ারা করে নিতে চান।

ভাইয়েরা কিছুতেই বোনদের বাবার সম্পত্তির অংশ দিতে চাচ্ছেন না। তাদের যুক্তি বোনেরা তো শ্বশুরবাড়ি থাকেন,

তারা সম্পত্তি দিয়ে কি করবে। শরীফার বড় বোন বাবার সম্পত্তিতে কোনো দাবি না করলেও শরীফা কিছুতেই তাঁর প্রাপ্য অংশ থেকে বঞ্চিত হতে চান না।

কিন্তু শরীফা এখন কী করবেন? আমাদের আশেপাশে তাকালেই আমরা এমন ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী হতে পারবো। যা মোটেও উচিত নয় ভাইদের জন্য।

তবে অনেক সময় বোনেরা বাবার সম্পত্তির অংশ না নিয়ে তাদের দাবি ছেড়ে দেন। কিন্তু অনেকে অজ্ঞতার কারণে, আবার অনেকে ভাইদের সঙ্গে কোনো ঝামেলা হবে ভেবে অংশটুকু ছেড়ে দেন।

কিন্তু বোনেরা ইচ্ছা করলে তাঁদের অধিকারের জন্য আইনের আশ্রয় নিতে পারেন।

বোনেরা সম্পত্তির কতটুকু অংশ পাবে?

মুসলিম আইনে বাবা বা মা মারা গেলে মৃত ব্যক্তির যদি ছেলে এবং মেয়ে উভয়ই থাকে তাহলে রেখে যাওয়া সম্পত্তি থেকে মেয়ে বা মেয়েরা তার অর্ধেক পাবেন যা পাবেন তার ভাই তার থেকে।

অর্থাৎ ভাইয়েরা ইচ্ছা করলেই বোনদের সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করতে পারবেন না। এ ক্ষেত্রে বোনের বিয়ে হোক বা না হোক, সেটি বিবেচ্য নয়।

বোনদের বিয়ে হয়ে গেলেও বোনদের সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করা যাবে না। বোনদের প্রাপ্য সম্পত্তি দিয়ে দিতে হবে এইটিই ইসলামের বিধান।

কোনভাবেই তাদেরকে তাদের প্রাপ্য অংশ থেকে বঞ্চিত করা যাবে না।

বরংচ কেউ যদি বঞ্চিত করার চিন্তা করেন সেটিও তাদের জন্য গোনাহের কারণ। কোন বোন যদি সম্পত্তি নিতে নাও চান তবু তাদের প্রাপ্য সম্পত্তি তাদের দিয়ে দিতে হবে।

তবে তারা যদি এমনিতেই ভাইকে ভালোবেসে লিখিত আকারে দলিল করে দিয়ে যায় সেইটা ভিন্ন বিষয়।

তাই বলে জোর করে বোনদের কাছে থেকে সম্পত্তি লিখে নিবেন সেইটা কিন্তু হবে না, যদি নেন যা হবে তা অপরাধ এবং বোনদের প্রাপ্য সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করা।

যদি কারো বোনদের বঞ্চিত করার ইচ্ছা থাকে পিতার সম্পত্তি থেকে এখনই মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন।

যদি বাবার সম্পত্তির অংশ থেকে বঞ্চিত করা হয় সেক্ষেত্রে বোনদের করণীয়:

ভাই-বোনেরা  অতি সহজেই নিজেদের মধ্যে আলাপ-আলোচনা করে আপস বণ্টননামা করে নিতে পারেন।

তবে আপোষ-মীমাংসা করার পর বণ্টননামাটি অবশ্যই রেজিস্ট্রি করে নিতে হবে।

আর যদি আপসের মাধ্যমে ভাইয়েরা বোনদের সম্পত্তি দিতে না চান কিংবা বোনদের সম্পত্তি কম দিতে চান তাহলে বোনেরা দেওয়ানি আদালতের আশ্রয় নিতে পারেন।

এ ক্ষেত্রে বঞ্চিত বোনেরা বাঁটোয়ারা বা বণ্টনের মোকাদ্দমা করতে পারেন।

মৃত ব্যক্তির রেখে যাওয়া সম্পত্তির ভাগ-বণ্টন নিয়ে উত্তরাধিকারীদের মধ্যে বনিবনা না হলে আদালতের মাধ্যমে এই ভাগ-বণ্টন দাবি করা যায়।

বাঁটোয়ারা মামলা 

কোনো যৌথ সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ দেখা দিলেও কে কতটুকু অংশ পাবেন তা আদালতের মাধ্যমে নির্ধারণের জন্য বাঁটোয়ারা মামলা করতে হয়।

সাধারণত বিরোধ দেখা দেওয়ার ছয় বছরের মধ্যে মামলা করতে হয়।

এই মোকদ্দমা চলাকালে কেউ মারা গেলে তাঁদের উত্তরাধিকারীরা অন্তর্ভুক্ত হতে পারেন এবং তাদের প্রাপ্য অংশ চাইতে পারেন।

অর্থাৎ শুধু বোনেরা নন, বোনেরা মারা যাওয়ার পর তাঁর উত্তরাধিকারীরাও এই মামলায় পক্ষ হতে পারেন।

এ মামলায় দুবার ডিক্রি হয়

প্রাথমিক ডিক্রি হওয়ার পরে বা আগে নিজেরা নির্ধারিত সময়ে আপস-মীমাংসা করে নেওয়ার সুযোগ আছে।

প্রাথমিক ডিক্রির পর বণ্টন না করা হলে আদালত কোন এডভোকেটকে কমিশনার নিয়োগ করে অংশ নির্ধারণ করে দিতে পারেন

এবং তারপরে আদালত চূড়ান্ত ডিক্রি প্রদান করতে পারেন।

সুত্রঃঅনলাইন ।

1 COMMENT

  1. Sir ami 10 years Italy te thaki amar baba mara Jan 2006 sale, mara jaoar age thekei amar bon ar bon jamai amader basai thake, amra ek vai ek bon 2017 te dese gie jokhon amar dhaka barir vag cailam se ekhon bari dokhol charse na amar eto somoy nei je ami dese gie mamla mokkadoma kori ekhane business kori , dhakar barita bon vara die rakhse ami dese gele bou bacca nie onner basai thaki tai emon ki kora jay jati ami taratai amar vager jaygata dokhol korte pari? Amar jaygar nam jari kora hoise plz suggest me.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here